সংবাদ শিরোনাম:

6/recent/ticker-posts

Header Ads Widget

পাকিস্তানি স্পিনারদের ঘূর্ণিতে হঠাৎ ধস দক্ষিণ আফ্রিকার



প্রথম ইনিংসে ১৫৮ রানের বড় ব্যবধানে পিছিয়ে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকা করাচি টেস্টে চাপেই ছিল। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে দারুণ ব্যাটিংয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিচ্ছিল সফরকারিরা।

একটা পর্যায়ে ১ উইকেটেই প্রোটিয়ারা তুলে ফেলেছিল ১৭৫ রান। অর্থাৎ ১৭ রানের লিড নিয়ে হাতে ছিল ৮ উইকেট। চাপ স্বভাবতই ফেরত এসেছিল পাকিস্তানের ওপর। সেখান থেকে আবারও স্বাগতিকদের মুখে ফুটেছে হাসি। স্পিনাররা কোণঠাসা করে দিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকাকে।

শেষ বিকেলে এসে ১০ রানের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ৩ উইকেট হারিয়েছে প্রোটিয়ারা। ১ উইকেটে ১৭৫ রান থেকে তারা পরিণত হয়েছে ৪ উইকেটে ১৮৫ রানে। দিন শেষ করেছে আর দুই রান যোগ করে।

দ্বিতীয় ইনিংসে ডিন এলগার দলীয় ৪৮ রানের মাথায় ইয়াসির শাহর শিকার হয়ে ফিরলেও এইডেন মার্করাম আর রসি ভ্যান ডার ডাসেনের হাফসেঞ্চুরিতে ভর করে লড়াইয়ে ফিরেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা।

হাফসেঞ্চুরিয়ান ভ্যান ডার ডাসেনকে (৬৪) ইয়াসির ঘূর্ণিজাদুতে ফেরানোর পরই ধস নামে প্রোটিয়া ইনিংসে। দলের খাতায় আর ১০ রান যোগ হতেই পাকিস্তানি লেগস্পিনারের বলে এলবিডব্লিউ হন ফাফ ডু প্লেসিস (১০)।

পরের ওভারে আরও এক উইকেট হারায় অতিথিরা। এবার অভিষিক্ত বাঁহাতি স্পিনার নোমান আলির শিকার সেট ব্যাটসম্যান মার্করাম (৭৪)। দ্রুত তিন উইকেট হারিয়ে শেষবেলায় বিপদে পড়েছে প্রোটিয়ারা।

দক্ষিণ আফ্রিকা তৃতীয় দিন শেষ করেছে ৪ উইকেটে ১৮৭ রান নিয়ে। লিড মাত্র ২৯ রানের। উইকেটে আছেন কুইন্টন ডি কক (০*) আর কেশভ মহারাজ (২)। স্বীকৃত ব্যাটসম্যান বলতে তিনজন-ডি কক, টেম্বা বাভুমা আর মাত্র এক টেস্টের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন জর্জ লিন্ডে।

আন্দাজ করাই যাচ্ছে, চতুর্থ দিনে পাকিস্তানি বোলারদের সামনে কঠিন পরীক্ষাতেই পড়তে হবে সফরকারিদের। সেই পরীক্ষায় উৎড়াতে হলে স্বীকৃত ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দুই একজনকে বড় ইনিংস খেলতে হবে।, না হলে ম্যাচ বাঁচানো কঠিনই হবে প্রোটিয়াদের।

Post a Comment

0 Comments